Home মালদা ছেলে থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত, সাহায্যের আর্জি পরিবারের

ছেলে থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত, সাহায্যের আর্জি পরিবারের

মানব জীবন কয়েকটি ধাপে বেড়ে ওঠে। তার মধ্যে একটি ধাপ হল কিশোর বয়স। এই বয়সে বাচ্চারা পড়াশোনা করে আর তার পাশাপাশি খেলাধুলা করে। কিন্তু অনেকের জীবনে তা ইচ্ছে থাকলেও উপায় হয় না। কখন অর্থের অভাব আবার কখন শারীরিক অসুস্থতা বাধা দেয়।এরকম কারণেই মোহাম্মদ সেলিম নাম এক কিশোর ঘরে বন্দি। তার বয়স ১৪ বছর। সে সুফিয়া সুলতানার ছেলে। চাঁচল ২ নং ব্লকের মালিতিপুর গ্রাম পঞ্চায়েত লাল গঞ্জ গ্রামের বাসিন্দা। মোহাম্মদ সেলিম ছোটবেলায় একবার জন্ডিস রোগে আক্রান্ত হয়ে ছিল কিন্তু পরে ডাক্তার এর কাছে দেখাতে নিয়ে গেলে ডাক্তার বললো এটা থ্যালাসেমিয়া রোগ। এই রোগীদের প্রতি মাসে রক্ত দিতে হয় তাই প্রতি মাসে সুফিয়া সেলিম ছেলের জন্য রক্ত জোগাড় করতে গুঁড়ে বেড়ান। রক্ত দাতা দের সহযোগিতা রক্ত জোগাড় হয় প্রতি মাসেই। কিন্তূ ডাক্তার বললেন সেলিমের অপারেশন করতে হবে কিন্তু অপারেশন করতে যা খরচ হবে তার জোগাড় করা খুব কষ্টকর সেলিমের পরিবারের পক্ষে।

হটাৎ করে ১৪বছরের কিশোরের জীবনে যেন সংকট এসেছে। সেলিম অষ্টম শ্রেণী তে পড়তো সে ছোট থেকেই পড়াশোনা তে ভালো। গোবিন্দ পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় এ সে পড়তো। কিন্তু থ্যালাসেমিয়া রোগ আক্রান্ত হওয়ার পর সে আর স্কুলে যায় না। কারণ থ্যালাসেমিয়া রোগ ধরা পরার পর তার শরীরের গঠন আকৃতি অন্য রকম হয়ে গেছিলো যার জন্য তার বন্ধুরা তাকে নিয়ে নানান ভাবে হাসা হাসি করতো। কিন্তু এখন বেশ অনেক দিন থেকে সেলিম পড়াশোনার জগৎ থেকে বাইরে বেরিয়ে এসেছে। বই এর সাথে অনেক দিন থেকে তার সম্পর্ক নেই। প্রতি মাসেই সেলিমের মা তার রক্ত জোগাড় করার জন্য বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়ায়। কিন্তু ডাক্তার এখন বলেছে অপারেশন করতে হবে। কিন্তু অপারেশন এর জন্য এত টাকা সেলিমের মা কোথায় পাবে এই ভেবে ভেবে সেলিমের মা হতাশ হয়ে পড়েছেন। কে তাদের সাহায্য করবে সর্বদা এই ভাবনাতে ব্যস্ত।

এই দূর সময় সেলিমের চিকিৎসার জন্য সেলিমের পরিবারের পাশে এসেছে দাঁড়িয়েছেন মালতিপুর বিধানসভা র প্রাক্তন বিধায়ক আব্দুল রহিম বক্স। তিনি সেলিমের পরিবার কে চাল ডাল সহ আর্থিক সাহায্য করেন। সেলিমের পরিবারের এই অসহায় সময় তিনি সাহায্য হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। এছাড়া সেলিমের মা সুফিয়া সুলতানা ও তার পরিবার সরকারের কাছে ছেলের অপারেশন এর জন্য সাহায্য এর আবেদন জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

শীর্ষ সংবাদ

- Advertisement -

অন্য রকম