fbpx
Sunday, August 1, 2021
Homeরাজ্যবিধায়ক হিসেবে পাওয়া বেতনের অর্থ কি করবেন নিজের মুখে জানালেন চন্দনা বাউরী!

বিধায়ক হিসেবে পাওয়া বেতনের অর্থ কি করবেন নিজের মুখে জানালেন চন্দনা বাউরী!

বিধায়ক হিসেবে পাওয়া বেতনের অর্থ কি করবেন নিজের মুখে জানালেন চন্দনা বাউরী!

ইতি মধ্যেই বঙ্গ রাজনীতিতে শোরগোল ফেলে দেওয়ার মতন একজন বিধায়ক হলেন বাঁকুড়া জেলার শালতোড়া চন্দনা বাউরী। যখন বিজেপি তাকে প্রার্থী করে তখন থেকেই সবার নজর কেড়েছিলেন তিনি। স্বামী রাজমিস্ত্রির কাজ করেন তিন সন্তান নিয়ে টালির চালায় তার সংসার। পান্তা খেয়ে ভোট প্রচার করেছেন তিনি।

 

 

যেখানে অন্যান্য প্রার্থীরা বিলাসবহুল গাড়ি সহকারে প্রচারে নেমেছেন সেখানে চন্দনা বাউরী পায়ে হেঁটে ঘুরে গিয়ে প্রচার সেরে এসেছেন। তারপরই গোটা বঙ্গ রাজনীতির একজন মধ্যমণি হয়ে উঠেছেন চন্দনা বাউরী। যখনই তিনি কোন প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন তখনই বলেছেন আগে মানুষের জন্য কাজ তারপর নিজেরটা চিন্তা করা যাবে। যদিও তার দিন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা কিন্তু যেভাবে তিনি মানুষের জন্য ভেবে যাচ্ছেন তা সত্যি অবিশ্বাস্য।

 

 

২ রা মে বিধানসভা ভোটের ফল বেরোনোর পর গোটা রাজ্যে বিজেপিভালো ফল না করলেওচন্দনা প্রার্থী হিসেবে জয়ী হওয়ায় খুশি বিভিন্ন রাজনৈতিক মহল।

 

কিছুদিন আগে এক সংবাদমাধ্যমের থেকে তাকে প্রশ্ন করা হয় আপনার বিধায়ক হিসেবে প্রাপ্ত বেতন কি করবেন তখন তিনি জানান আমার বেতন কত হবে। আর উত্তরের তাকে জানানো হয় প্রায় ৮২ হাজার টাকা তো হবেই। তখন তিনি বলেন আমার তো এত টাকা লাগবে না তবে দেখা যাক কি করা যায়। আর এই কথা চারিদিকে ছড়িয়ে পড়তেই মানুষ মধ্যে জায়গা করে নেয় চন্দনা বাউরী।

 

এরপরই চন্দনাকে ঘোষণা করা হয় আপনার এই প্রাপ্য বেতন কি করবেন। তখন তার উত্তরে তিনি জানান যে আগে আমার প্রাপ্য বেতন থেকে রাস্তা তৈরি করব গ্রামের কারণ গ্রামে রাস্তায় বর্ষার সময় এক কোমর জল হয়ে যায় গর্ভবতী মহিলাকে হাসপাতাল নিয়ে যেতে কোন গাড়ি পাওয়া যায় না তখন একমাত্র উপায় থাকে খাটিয়া। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব গ্রামের রাস্তা পাকা করবো যাতে এই অসুবিধার সম্মুখীন হতে না হয়।

 

এরপরে তাকে যখন প্রশ্ন করা হয় যে আপনার বাড়ি ও তো কাঁচা তো আপনি বাড়ি করবেন না। তার উত্তরে তিনি হেসে বলেন আমার যা বাড়ি আছে তাতেই চলবে এবং প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর পাব তাতেই আমার চলে যাবে। যাদের মাটির বাড়ি আচ্ছে গ্রামের তাদের বাড়ি-ঘর বর্ষার সময় ভেঙ্গে যায় তাই ভাবছি একটি ত্রিপাল দেব তাদেরকে।

এরপর তিনি একটু সুর চড়িয়ে বলেন যে সরকার তো সেইভাবে সাহায্য করবে না তাই সেই বেতনের টাকা তেই হয়তো মানুষের জন্য পানীয় জলের ব্যবস্থা করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীর্ষ সংবাদ

অন্য রকম