Home রাজনীতি ছত্রধর মাহাতো এখন রাজ্যে কমিটির সদস্য, গুঞ্জন শুরু জঙ্গল মহলের রাজনীতিতে!

ছত্রধর মাহাতো এখন রাজ্যে কমিটির সদস্য, গুঞ্জন শুরু জঙ্গল মহলের রাজনীতিতে!

অনলাইন ডেস্ক,২৪জুলাইঃ ২১শের বিধানসভার ভোটে জিতে আবারো রাজ্যে ক্ষমতা কায়েম করতে জোরদার চেষ্টা শুরু করে দিয়েছে রাজ্যের শাসকদল। তাই নিজেদের দলের কিছু অভ্যন্তরীন পরিবর্তন করলেন মুখ্যমন্ত্রী। গত বৃহস্পতিবার রাজ্যের একাধিক নেতা মন্ত্রীদের বিভিন্ন পদে যুক্ত করা হয় এবং আবার অনেককে তাদের পুরোনো পদ থেকে সরিয়েও দেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যে বিজেপির জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে, গত লোকসভা ভোটে ২ থেকে উঠে ১৮টি সাংসদ এই রাজ্যে পেয়েছে বিজেপি আর তাতে করে চিন্তার ভাঁজ পরতে দেখা গিয়েছে রাজ্য শাসকদলের ওপর।রাজ্যের বিভিন্ন জেলা সমেত জঙ্গল মহলেও বিজেপির জনপ্রিয়তা অনেকটাই বেড়েছে, তাই মুখ্যমন্ত্রী এবারে ছত্রধর মাহাতোকে রাজ্য কমিটির সদস্য করলেন।

মুখ্যমন্ত্রীর ছত্রধর মাহাতোকে রাজ্য কমিটির সদস্য করবার সিদ্ধান্তে এবারে বিরোধীরা কটাক্ষ করেন। এমনকি বিজেপি ও সিপিএম এর তরফ থেকে ছত্রধরকে রাজ্য কমিটির সদস্য করায় তৃণমূলে মাওবাদী যোগ রয়েছে বলে মন্তব্য করা হয়।গত ফেব্রুয়ারী মাসেই ছত্রধর মাহাতো জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন এর পরেই তার তৃণমূলে যোগদানের কথা বারবার উঠে আসে। বেশকিছুদিন আগেই তৃণমূলের কর্মীসভায় সস্ত্রীক যোগ দিয়েছিলেন বলে খবর।একাধিক বার তিনি জানিয়েছিলেন দলের হয়ে কাজ করতে গেলে একটি পদের প্রয়োজন হয়। তাই এবারে রাজ্য দলের কমিটিতে তাকে সদস্যপদ দেন মুখ্যমন্ত্রী।

এর পরেই বিরোধী শিবিরের নেতা, বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলার সভাপতি সুখময় সৎপথি কটাক্ষ করে বলেন,মাওবাদী কার্যকলাপের জন্যে ছত্রধর মাহাতোকে জেল খাটতে হয়েছিল। এমনকি ছত্রধরের হাত ধরেই মমতা ব্যানার্জী রাজ্যের ক্ষমতায় এসেছিলেন।তখন তৃণমূল মাওবাদী জোট ছিল আজ তাই প্রমান হয়ে গেলো।

নব ভারপ্রাপ্ত তৃণমূল রাজ্য কমিটির সদস্য ছত্রধর বাবু জানান,তিনি প্রথম থেকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের সাথেই ছিলেন, গণআন্দোলনের সাথে তিনি যুক্ত ছিলেন, এর পরেই গণআন্দোলনের পর রাজ্যে তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসে।ছত্রধর বাবু আরও বলেন, অনেকদিনের ইচ্ছে ছিল দিদির দলের হয়ে কাজ করবো, আজ দিদি আমাকে রাজ্য কমিটিতে স্থান দিয়েছেন তার জন্যে তিনি মমতা ব্যানার্জীর কাছে কৃতজ্ঞ। জঙ্গল মহলে দলের সংগঠনকে আরও মজবুত অবস্থায় ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

শীর্ষ সংবাদ

- Advertisement -

অন্য রকম