Home কোচবিহার কোচবিহার জেলায় স্বাস্থ্যকর্মীদের আন্দোলন! জানুন বিস্তারিত

কোচবিহার জেলায় স্বাস্থ্যকর্মীদের আন্দোলন! জানুন বিস্তারিত

বিশ্ব জুড়ে করোনা আবহাওয়া। দেশের প্রতিটি জেলায় প্রতিদিন করোনা আক্রান্ত এর সংখ্যা বাড়ছে। প্রতি টি রাজ্যে ভয়াবহ পরিস্থিতি দাঁড়াচ্ছে। ঠিক তখন রাজ্যের পুরুষ স্বাস্থ্য কর্মীরা পরিষেবা বন্ধ করে দিয়ে বেতন বৃদ্ধির দাবিতে অনশন আন্দোলন এ মাঠে নামলেন।

এমপিএইচডাবলু ওয়ার্কআররা কোচবিহার , ঝাড়গ্রাম , আলিপুরদুয়ারে আজ এই অনশন আন্দোলন শুরু করলেন। তারা বললেন আগেও একবার তারা এই বেতন বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন এ বসেছিলেন তখন বেতন বাড়ার আশ্বাস দেওয়ার পরেও বেতন বৃদ্ধির কেনো নাম নেই। তারা করোনার এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে জীবনের বাজি রেখে করোনা আক্রান্ত দের পরিষেবা দিচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েছে তারা এই অনশন এ নেমেছেন।

নানা সূত্রে জানা গেছে , এই পুরুষ স্বাস্থ্য কর্মীরা ছয় হাজার টাকা মাসিক বেতনে অস্থায়ী ভাবে নিয়োগ হয়েছিলেন ২০০৯ সালে।তাদের বেতন ১৩ হাজার ৮০০টাকা হয় ২০১২ সালে। কিন্ত তারপর এই কয়েক বছরে তাদের আর বেতন বৃদ্ধি হয় নি। কিন্ত এই করোনা পরিস্থিতিতে নতুন যাদের এই পরিষেবা তে নিয়োগ করা হয়েছে তাদের বেতন ১৫ হাজার টাকা তাহলে তাদের বেতন কেন বৃদ্ধি করা হবে না বলে দাবি ওই পুরুষ স্বাস্থ্য কর্মী আন্দোলন কারীদের।

আমাদের আন্দোলন এর জেরে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিষেবা সমস্যা তৈরী হবে জানি কিন্তু এর আগে ফেব্রুয়ারী মাসে আন্দোলন করার সময় আশ্বাস দাওয়া হয়েছিল কিন্তু এরপর ছয় মাস পার হওয়ার পরেও বেতন বৃদ্ধি হয়নি। তাই আবার অনশন এ নামতে বাধ্য হয়েছি। এবার আন্দোলন পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া হবে একথা জানালেন আন্দোলন কারীর পক্ষে সাবিদুল মিঞা।এর আগেই পুরুষ স্বাস্থ্য কর্মীরা ম্যালেরিয়া , টাইফয়েড এইরকম বিভিন্ন রোগের সময় বিভিন্ন স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে কাজ করেছেন তারা। কিন্তু এই করোনা পরিস্থিতি শুরু হতেই পুরুষ স্বাস্থ্য কর্মীদের ভিন রাজ্যে থেকে আসা শ্রমিক দের স্বাস্থ্য পরীক্ষা , খাবার ও ওষুধ সরবরাহ করা থেকে শুরু করে ব্লক ও জেলা স্বাস্থ্য দফতরে প্রতিদিন এর তথ্য পাঠানোর কাজ করতে হত। আন্দোলন কারীরা বললেন এই আন্দোলন এর পর দেখার স্বাস্থ্য দফতর তাদের নিয়ে কি পদক্ষেপ নেন কারণ ১০ অগাস্ট থেকে আবার আন্দোলন শুরু করার পর করোনা মোকাবিলা কাজে অনেকটা প্রভাব পড়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

শীর্ষ সংবাদ

- Advertisement -

অন্য রকম