fbpx
Saturday, July 24, 2021
Homeঅন্যান্য"দূর্গাপুজোর" ইতিহাস! কেন দূর্গা প্রতিমার নাম 'ভাঁরে মা'? জেনে নিন বিস্তারিত

“দূর্গাপুজোর” ইতিহাস! কেন দূর্গা প্রতিমার নাম ‘ভাঁরে মা’? জেনে নিন বিস্তারিত

সাধারণত প্রতিটি ক্লাবের ও পাড়ার দুর্গাপুজো মা দুর্গার মূর্তিতেই করতে দেখা যায়। কিন্তু পূর্ব বর্ধমানে শাকারি গ্রামে এর ব্যতিক্রম নিয়ম দেখা গেল। তিনশো বছর ধরে ওই গ্রামের ভাড়ে মার মন্দিরে হয়ে চলেছে ঘট পুজো। এখানে মায়ের নাম ভাড়ে মা কারণ মাটির ভাড়ে পুজো হয়। ওই গ্রামে প্রতিমার পরিবর্তে ঘটে পুজো হওয়ার পেছনে রয়েছে এক পুরাতন কাহিনী।

বহু বছর আগে দেব খালের ধরে মায়ের পাথরের মূর্তি কুড়িয়ে পাওয়া হয়। এরপর মা স্বপ্নে দেখা দেওয়ার পর সেই মূর্তি গ্রামের সবচেয়ে উঁচু জায়গায় প্রতিষ্ঠিত করা হয়। বিশাল মন্দিরে অধিপ্ষ্ঠিত মা শংকরি। মায়ের নামেই গ্রামের নাম শাকারি। এই মন্দিরে মহিলাদের প্রবেশ নিষেধ ছিল। তাই মহিলারা এই মায়ের পুজোতে থাকতে পারতেন না।

তাই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজোতেও বহিস্কার করা হত মহিলাদের। এই নিয়ে বিবাদ শুরু হয়ে যায়। অনেকেই অনেক প্রতিবাদ শুরু করে। যারফলে মহিলাদের জন্য আলাদাভাবে দুর্গাপুজোর আয়োজন করে রায় পরিবার।

পুজোর সব জোগাড় সুন্দরভাবে সম্পূর্ণ করে মায়ের পুজোর জন্য মূর্তি তৈরী করে সবটাই যখন সম্পূর্ণ। ঠিক ষষ্ঠীর আগে ঘটে গেল এক তাজ্জব লাগার মতো ঘটনা। পুজো শুরু হওয়ার আগেই মায়ের মূর্তি ভেঙে পড়লো। এবং রায় পরিবারের কর্তাকে পাথরের মা শঙ্করি স্বপ্নে দেখা দিলেন। তবে কি কালো মা আর পছন্দ হচ্ছে না? এই ঘটনার পর থেকে ওই গ্রামে আর কখনো মূর্তি পুজো করা হয় না।

মায়ের ছবি এঁকে ঘটে মায়ের পুজো করা হয়। মোটা কাগজে মায়ের ছবি এঁকে তার সামনে মাটির ঘট রেখে পুজো করা হয় মায়ের। মায়ের ছবিতে পড়ানো হয় সোনার গয়না দশমীতে সেই গয়না খুলে বিসর্জন দেওয়া হয় মায়ের। মাটির ভাড়ে মায়ের পুজো করা হয় বলে গ্রামের এই মায়ের নাম ভাড়ে মা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীর্ষ সংবাদ

অন্য রকম