fbpx
Friday, July 30, 2021
Homeরাজনীতিদলের বিরুদ্ধে জমে থাকা ক্ষোভ উগরে দিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান...

দলের বিরুদ্ধে জমে থাকা ক্ষোভ উগরে দিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান আইনজীবী নেতা কপিল সিব্বল

বিদ্রোহের আগুনটা কংগ্রেসের অন্দরে ধিকধিক করেই জ্বলছিলই। তাতে ঘি ঢালল বিহার বিধানসভা ও একাধিক রাজ্যের উপনির্বাচনের ফলাফল। এক সর্বভারতীয় দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দলের বিরুদ্ধে জমে থাকা ক্ষোভ উগরে দিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান আইনজীবী নেতা কপিল সিব্বল। হারই কংগ্রেসের অভ্যেস হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে কটাক্ষ করলেন তিনি। একইসঙ্গে ফের একবার দলের খোলনলচে বদলেরও দাবি জানিয়েছেন সিব্বল।

বিদ্রোহের আগুনটা কংগ্রেসের অন্দরে ধিকধিক করেই জ্বলছিলই। তাতে ঘি ঢালল বিহার বিধানসভা ও একাধিক রাজ্যের উপনির্বাচনের ফলাফল। এক সর্বভারতীয় দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দলের বিরুদ্ধে জমে থাকা ক্ষোভ উগরে দিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান আইনজীবী নেতা কপিল সিব্বল। হারই কংগ্রেসের অভ্যেস হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে কটাক্ষ করলেন তিনি। একইসঙ্গে ফের একবার দলের খোলনলচে বদলেরও দাবি জানিয়েছেন সিব্বল।

বিহারে কংগ্রেসের ভরাডুবি প্রসঙ্গে দলের তরফে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি। কংগ্রেসে গা ছাড়া মনোভাব প্রসঙ্গে সিব্বলের খোঁচা. “বিহার ও সাম্প্রতিক উপনির্বাচনে কংগ্রেসের খারাপ ফল নিয়ে দলের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়নি। তাঁরা হয়তো ভাবছেন সব ঠিক আছে। এটাই (পরাজয়) দলের অভ্যেস হয়ে দাঁড়িয়েছে।” দলের অন্তর্তদন্ত নিয়ে মুখ খুলেছেন সিব্বল। তাঁর কথায়, “গত ছ’বছরে কংগ্রেস যদি আত্মসমালোচনা না করতে পেরে থাকে. তাহলে এখন আর তা সম্ভব নয়। কোথায় ভুল হচ্ছে, কোথায় সমস্যা রয়েছে কংগ্রেস সবটাই জানে। শুধু সেগুলো মেনে নিতে রাজি নয় তাঁরা।” রাজনৈতিক মহলের মতে, সিব্বল এই মন্তব্যে পরোক্ষভাবে গান্ধি পরিবারের নেতৃত্বের সমালোচনা করেছেন।

বিহার বিধানসভা নির্বাচনে মুখ থুবড়ে পড়েছে কংগ্রেস। মহাজোটের হারের দায় কার্যত কংগ্রেসের উপরই চেপেছে। বিশেষ করে ভোটপ্রচারের সময় রাহুল গান্ধী সিমলায় ছুটি কাটাতে যাওয়ার বিষয়টি ভালভাবে নিতে পারনি কংগ্রেসের নিচুতলার কর্মী ও জোটসঙ্গীরা। এবার পরোক্ষভাবে সেই গান্ধি পরিবারের বিরুদ্ধেই তোপ দাগলেন আইনজীবী নেতা কপিল সিব্বল

ওই সাক্ষাৎকারে সিব্বল দলের খোলনলচে বদল নিয়েও মুখ খুলেছেন। প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর কথায়, “সাংগঠনিক, সংবাদমাধ্যমে মুখ খোলা, যাঁদের কথা মানুষ শুনতে চায়, তাঁদের তুলে আনা, সক্রিয় নেতাদের কাজে লাগানোর মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের নানা সংস্কারের কাজ করতে হবে।” গুজরাট, মধ্যপ্রদেশের মতো রাজ্যগুলিতে বিধানসভা নির্বাচনে ভাল ফল করলেও উপনির্বাচনে পর্যদুস্ত হয়েছে কংগ্রেস। এ প্রসঙ্গে কংগ্রেস নেতার স্বীকারোক্তি, “যে সব রাজ্যে বিকল্প হিসেবে মানুষ আমাদের চাইছেন, আমরা তাঁদের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীর্ষ সংবাদ

অন্য রকম