fbpx
Friday, July 23, 2021
Homeআন্তর্জাতিকলিবিয়ায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে চুক্তিবদ্ধ দুই পক্ষ

লিবিয়ায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে চুক্তিবদ্ধ দুই পক্ষ

লিবিয়ায় যুদ্ধরত দু’পক্ষ দেশটির সব এলাকায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়েছে। গত শুক্রবার লিবিয়ায় নিযুক্ত জাতিসংঘের মধ্যস্ততায় সুইজারল্যান্ডে যুদ্ধরত আন্তর্জাতিক গোষ্ঠী সমর্থিত ত্রিপোলিভিত্তিক সরকার গভর্নমেন্ট অব ন্যাশনাল অ্যাকর্ড (জিএনএ) ও খলিফা হাফতারের লিবিয়ান ন্যাশনাল আর্মির (এলএনএ) মধ্যে এ চুক্তি হয়।

এ চুক্তির ফলে লিবিয়ায় দীর্ঘদিনের যুদ্ধ শেষে স্থায়ী শান্তি ফিরতে যাচ্ছে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। যদিও অনেকেই এ চুক্তি স্থায়ী হবে কি নাÑতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন। কারণ এর আগেও এ ধরনের যুদ্ধবিরতি চুক্তি স্বাক্ষরিত হলেও কিছুদিনের মধ্যে তা লঙ্ঘন করে যুদ্ধে লিপ্ত হয় জিএনএ ও এলএনএ।

লিবিয়ায় নিযুক্ত জাতিসংঘ দূত স্টেফানি উইলিয়ামস বলেছেন, শিগগিরই এ যুদ্ধবিরতি কার্যকর হবে । আগামী তিন মাসের মধ্যে সব বিদেশি যোদ্ধাকে বাধ্যতামূলক লিবিয়া ছাড়তে হবে। সম্মুখসারি থেকে বাহিনীর সদস্যদের প্রত্যাহার এবং সেসব স্থানে একটি নতুন যৌথ পুলিশ বাহিনী নিরাপত্তায় নিয়োজিত হবে।

খলিফা হাফতার বাহিনীর সঙ্গে লিবিয়ার ক্ষমতাসীন সরকারের যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে পৌঁছানোর পর এক বছরের বেশি সময় পর প্রথমবারের মতো শুক্রবার ত্রিপোলি থেকে পূর্বাঞ্চলীয় শহর বেনগাজির উদ্দেশে একটি বাণিজ্যিক বিমান যাত্রী পরিবহন শুরু করেছে। যুদ্ধবিরতিতে রাজি হওয়ায় লিবিয়ার লড়াইরত দু’পক্ষের সাহসিকতার প্রশংসা করেছেন জাতিসংঘ দূত স্টেফানি উইলিয়ামস। তবে ছিদ্রান্বেষীদের বিজয়ী হতে দেওয়া উচিত নয় বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। জাতিসংঘের এ দূত বলেন, যুদ্ধবিরতিতে রাজি হওয়া উভয় পক্ষেরই আন্তর্জাতিক সমর্থন প্রাপ্য।

রাজধানী ত্রিপোলিতে ১৪ মাসের লড়াইয়ের পর গত জুনে দেশটির ক্ষমতাসীন জিএনএ সরকার হাফতার বাহিনীকে পরাজিত করে। এরপর আন্তর্জাতিক গোষ্ঠী সমর্থিত জিএনএর সঙ্গে যুদ্ধবিরতিতে পৌঁছাল এলএনএ।

লিবিয়ার সাবেক স্বৈরশাসক মুয়াম্মার আল গাদ্দাফি পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটো সমর্থিত বাহিনীর হামলায় নিহত হওয়ার পর থেকে দেশটিতে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা শুরু হয়। গাদ্দাফির মৃত্যুর পর ২০১৪ সালে লিবিয়া পূর্ব এবং পশ্চিমাঞ্চলে বিভক্ত হয়ে যায়। যার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় জিএনএ ও এলএনএ’র হাতে।

গত বছর জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরাস শান্তি আলোচনা শুরুর প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ত্রিপোলি সফর করেন। কিন্তু তার সফরের মাঝেই হাফতার বাহিনী ত্রিপোলিতে হামলা চালায়। শুক্রবার যুদ্ধবিরতি চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ায় জাতিসংঘ মহাসচিব লিবিয়ার উভয় পক্ষের প্রশংসা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীর্ষ সংবাদ

অন্য রকম