Home বিনোদন পাহাড়ে গিয়ে অনলাইন ক্লাস, কুর্নিশ জানালেন বিরু

পাহাড়ে গিয়ে অনলাইন ক্লাস, কুর্নিশ জানালেন বিরু

অনলাইন ডেস্ক,২৬জুলাইঃ ফোনের নেটওয়ার্ক নেই কোথাও গোটা গ্রাম জুড়ে। শুধুমাত্র পাওয়া সম্ভব উঁচু পাহাড়ে উঠলেই । লকডাউনের জন্যে করতে হবে অনলাইন ক্লাস। প্রত্যেকদিন সকাল আটটায় পাহাড়ে ওঠা এবং বেলা দু’‌টোয় নিচে নেমে আসা, এটাই বছর বারোর হরিশের নিত্য দিনের কাজ। রাজস্থানের বারমারের পাঁচপাদরা গ্রামের বাসিন্দা সে !‌ ফোনে নেটওয়ার্ক নিয়ে আসতে রোজ উঁচু পাহাড়ে উঠে সে, ক্লাস করে অনলাইন এ। পড়াশোনার জন্য হরিশের এই অদম্য লড়াইয়ের কাহিনী সম্প্রতি গোটা নেটদুনিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার বীরেন্দ্র শেহওয়াগ খোদ নিজের টুইটার প্রোফাইলে এই বিষয়টিকে সকলের মধ্যে তুলে ধরবার চেষ্টা করেছেন।

অনলাইন ক্লাসই এখন ভরসা পড়ুয়াদের কাছে, করোনার কারণে বন্ধ রয়েছে স্কুল। তাই ফোনে নেটওয়ার্ক থাকা অত্যাবশ্যক । আর এখানেই বাঁধা তৈরি হয় হরিশের। অবশেষে এই বাঁধা অতিক্রম করে পাহাড়ে উঠে ক্লাস করার বিষয়েই মনস্থির করে ফেলে সে। কারণ সে মনে করে, ক্লাস না করতে পারলেই পিছিয়ে যাবে সে।তাই সে প্রত্যেকদিন সকাল সাড়ে সাতটা নাগাদ বাড়ি থেকে বেড়িয়ে পড়ে।আট’‌টার মধ্যে পাহাড়ে উঠে পড়ে, ছোটো টেবিল–চেয়ার, বই–খাতা হাতে নিয়ে। এভাবেই দুপুর দু’‌টো পর্যন্ত চলে ক্লাস ।আইএএস (IAS) হওয়ার স্বপ্ন দেখা জওহর নবোদয় বিদ্যালয়ের ছাত্র হরিশ, বিগত ৩৪ দিন ধরে এভাবেই পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রাক্তন ক্রিকেটার শেহওয়াগ এই হরিশের ছবি টুইটারে শেয়ার করেন। এমনকী পাশে থাকার আশ্বাসও দেন। বীরু বলেন, ‘হরিশ নামে রাজস্থানের বারমারের এক ছাত্র অনলাইন ক্লাসের জন্য নেটওয়ার্ক পেতে একটি পাহাড়ে ওঠে। সকাল আটটা থেকে দুপুর দু’‌টো পর্যন্ত ক্লাস করে বাড়ি ফেরে। হরিশের এই লড়াই যথেষ্ট প্রশংসনীয়, প্রয়োজনে তাকে সাহায্য করতে চাই।’‌ এরপরই ভাইরাল হতে থাকে শেহওয়াগের এই পোস্ট। নেটিজেনরাও আইএএস হওয়ার স্বপ্ন দেখা হরিশের এই অদম্য লড়াইয়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

শীর্ষ সংবাদ

- Advertisement -

অন্য রকম