Home আন্তর্জাতিক নাগোর্নো-কারাবাখ যুদ্ধে অসহায় আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার সাধারণ নাগরিক

নাগোর্নো-কারাবাখ যুদ্ধে অসহায় আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার সাধারণ নাগরিক

আজারাবাইজান ও আর্মেনিয়ার বাহিনী বিতর্কিত নাগোর্নো-কারাবাখ এলাকার নিয়ন্ত্রণের জন্য লড়াই চালাচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে। নাগোর্নো-কারাবাখ নিয়ে গত চার দশক ধরে এই দুই দেশ দ্বন্দ্বে লিপ্ত।বিরোধপূর্ণ অঞ্চল নাগোর্নো-কারাবাখের দখল নিয়ে ২৭শে সেপ্টেম্বর সকাল থেকে শুরু হয়েছে এই দফার সংঘাত যা এখনো অব্যাহত ।

এই লড়াইয়ের যাঁতাকলে পড়ে এক লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ ঘরবাড়ি হারিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৭৬টি স্কুল ও কিন্ডারগার্টেন। গোলাবর্ষণ করা হয়েছে একটি প্রসূতি হাসপাতালের ওপরেও ।কীভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন দুই দেশের সাধারণ মানুষ। কীধরনের প্রভাব পড়ছে শিশুদের ওপর তার নিয়ে দেওয়া জাতিসংঘ শিশু তহবিল (ইউনিসেফ)-এর এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্ততায় তিনবার যুদ্ধবিরতি হলেও, মানেনি কোন দেশই। মানবিক যুদ্ধবিরতির কয়েক ঘন্টার মধ্যেই যুদ্ধের ময়দানে পাল্টাপাল্টি মিসাইল ছোড়ে দক্ষিণ ককেশাসের দেশ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান।

নাগোর্নো-কারাবাখ আজারবাইজানের বলেই আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কিন্তু এটি নিয়ন্ত্রণ করে জাতিগত আর্মেনিয়ানরা।১৯৯১ সালের আগে পর্যন্ত আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান, দুটি দেশই ছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাওয়ার পর দুটি স্বাধীন দেশ হিসেবে তারা আলাদা হয়।১৯৮০-এর দশকের শেষদিকে অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সংঘাত শুরু হয়। ১৯৯১ সালে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের মুহূর্তে সংঘর্ষ চূড়ান্ত আকার ধারণ করে। ১৯৯৪ সালে দুই পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি প্রতিষ্ঠার আগ পর্যন্ত এই সংঘর্ষে ৩০ হাজার মানুষ নিহত হয়। পরে ২০১৬ এবং এই বছরের শুরুতেও সংঘাতে জড়ায় দুই পক্ষ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

শীর্ষ সংবাদ

- Advertisement -

অন্য রকম